Bonito Fish

19

Bonito Fish মাঝারি আকারের সামুদ্রিক শিকারি মাছ।সারা বিশ্বের মহাসাগরগুলোতে এদের বিচরণ।কালিনারি জগতে বনিটো মাছ এর পরিচিতিও বেশ জনপ্রিয়। প্রায় সকল কুজিনে এর ব্যবহার রয়েছে। বিশেষ করে জাপানিজ
কুজিনে রয়েছে বিশেষ চাহিদা ও ব্যবহার। sea food পর্বে আজ আমরা জানবো Bonito fish সম্পর্কে কিছু তথ্য।

 

পরিচিতি

Bonito Fish ইংরেজি নাম হলেও এটি মূলত স্প্যানিস শব্দ যার অর্থ ‘সুন্দর’। তবে ইংরিজিতে এই মাছ স্কিপজ্যাক টুনা বা স্ট্রিপড টুনা নামে পরিচিত। এটি টুনা ও ম্যাকেরেল পরিবারেরই আর একটি উপপ্রজাতির মাছ। Bonito
Fish এর বিশেষ ৪ টি প্রজাতি রয়েছে। আটলান্টিক বনিটো, প্যাসিফিক বনিটো, ইন্দো-প্যাসিফিক বনিটো এবং অস্ট্রেলিয়ান বনিটো। বনিটোর সাথে দেশের নাম গুলো এদের বসবাস অঞ্চলকে বোঝায়।আস্ট্রেলিয়া- বাননি, কমন বোনিটো, হর্স ম্যাকেরেল, লিটল বোনিটো, অস্ট্রেলিয়ান টুনা, ওয়াটসনের লিপিং বনিটো, লিপিং বনিটো
জাপানি- কাতসুও, হাগাস্তুও, কিংসুংগেটসুও
মরক্কো- বালামিদ
যুক্ত্ররাজ্য- বেল্টেড বোনিটো, আটলান্টিক বনিটো
যুক্তরাষ্ট্র- বোনজ্যাক, বোলটার
পর্তুগাল- সেররা, সারদা


অঞ্চলভেদে বনিটো মাছের নামের পরিবর্তন রয়েছে। আমাদের দেশে একে ম্যাকেরাল, টুনা, সুরমা আরো বিভিন্ন নামে ডাকে। তবে এটি ম্যাকেরাল ও টুনা পরিবারের মাছ।

Bonito fish মূলত উষ্ণ ও নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলের উপকূলে বসবাস করে। চিলি,আলেক্সার উপসাগর, দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়া, মেক্সিকোর কাছাকাছি এদের পাওয়া যায়। দক্ষিণ আফ্রিকা, দক্ষিণ নরওয়ে, Black sea, ভূমধ্যসাগর, মেক্সিকোর উত্তরউপসাগর, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডের নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চল গুলি, ক্যালিফোর্নিয়া উপসাগর থেকে পেরু।প্রশান্তমহাসাগর, ভারতমহাসাগর এছাড়া সারা বিশ্বের মহাসাগরে বনিটো মাছ পাওয়া যায়।

সারা বছরই এই মাছ ধরা যায়। কিন্তু উপযোগী সময় হলো গ্রীষ্ম ও বসন্ত কাল। বানিজ্যিকভাবে ও স্থানীয় জেলেদের কাছে বনিটো ফিস জনপ্রিয়। বড় মাছের চাহিদা বেশি হওয়ায় জেলেরা বড় মাছগুলো ধরে। ইন্দোনেশিয়াতে বানিজ্যিকভাবে এই মাছ ধরা হয়। পরে এটি টাটকা/প্রক্রিয়াজাত করে বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করে। বিশেষ করে দারুসসালাম, চীন, ব্রুনাই, জাপান, ফিলিপাইনের পূর্ব তিমুরে এই মাছ রপ্তানি করে থাকে।

 

পুষ্টিগুণ

বনিটো মাছ পলিয়ানস্যাচুরেটেড ফ্যাট, মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট, সোডিয়া্‌ প্রোটিন, ভিটামিন ডি, ক্যালসিয়াম, আয়রন, পটাশিয়াম, ভিটামিন এ ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ।
১/২ ফিট মাছে কোলেস্টেরলের পরিমান ৯৩ মিলিগ্রাম ও কার্বোহাইড্রেট ০% হয়।

রন্ধন পদ্ধতি

বনিটো মাছের একটি বিশেষ স্মেল রয়েছে। যেটা টুনা মাছের স্মেলের সাথে সামনঞ্জস্য। তবে টুনা মাছের থেকেও বনিটো মাছের স্মেল স্ট্রং। এই মাছ কিছুটা অয়েলি, আদ্র নরম মাংস যুক্ত। তাই এই মাছ বেশি সময় কুক করলে খুব তাড়াতাড়ি ড্রাই হয়ে যায়। প্যান ফ্রাই, বেক, গ্রিল, বারবিকিউ, স্মোকি, কাচা, পিকেল করে খাওয়া যায়।

জাপানিজ কুজিনে দাশি তৈরিতে বনিটো ফ্লেক্স ব্যবহার করে। এর স্টক/ মিসো স্যুপ দিয়ে ওকোনোমিয়াকি নামক এক ধরনের পিঠা তৈরিতে ময়দার খামিরে ব্যবহার করে থাকে। বনিটো ফ্লেক্সকে কাতসুওবুশি বলা হয়। যা টিস্যুর মত পাতলা হয়। এই বনিটো ফ্লেক্স এর ফ্লেভার হয় খুবই স্ট্রং। দাশির বেইস উপাদান হিসেবেই কাতাসুওবুশি বা বনিটো ফ্লেক্স ব্যবহার করা হয়।

তুরষ্ক এবং বলকান অঞ্চলে বনিটো মাছটিকে গ্রিল করে খেয়ে থাকে। যা ওখানকার স্থানীয়দের কাছে খুব জনপ্রিয়। গ্রিল, বেক করেও খাওয়া হয়, ফ্রাই করতে ৪৫০ ফারেনহাইটে ওভেনকে প্রি-হিট করে ৯-১১ মিনিট বেক করতে হয়।
স্প্যানিশ একটি বিশেষ ডিশ হলো মারমিটাকো। এই ডিশে টুনার পরিবর্তে বনিটো ফিস ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও এই মাছ নানা রকম ভাবেই স্থানভেদে রান্নার করা হয়ে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close
Your custom text © Copyright 2024. All rights reserved.
Close