শেফ হওয়ার আগে কুক হও …

17

শেফ হওয়ার আগে কুক হও …

অনেকে আমাকে জিজ্ঞাসা করে শেফ হতে গেলে কি করতে হবে। আমি যা বলি তারা কতটুকু বুঝে তা আমি নিজেও বুঝতে পারি না। কারন আমাদের সমাজে টং টং ঘন্টা বেশি বাজে। মানে যে জানে তাদের কথা মানুষ শুনে না, আর যে জানেনা তার লাখ ফলোয়ার আছে এবং তারাই সবকিছু।

আমি সবসময় বলি, আগে ভালো একজন হেল্পার হও, দেখো, বুঝো, শেখো। তারপর কুক হও তারপরে শেফ। প্রতিটি জিনিসের একটা সিস্টেম আছে, সেই সিস্টেম ফলো করতে হবে। প্রথমে আমি বলবো শেফ হওয়ার আগে সব থেকে বেশি জানতে হবে কুলিনারি ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কে, একদম গভীর থেকে। 

এটা কি, কিভাবে আসলো, কি কি বিষয় জড়িত, কি জানতে হবে, কিভাবে শিখতে হবে, কতটুকু পরিশ্রম করতে হবে, কোথায় বা কার কাছে শিখতে হবে। এই অনেকগুলো কি এবং কেন যখন আপনি বুঝতে পারবেন তখন অনেক কিছু সহজ হয়ে যাবে।

জানার আর শেখার কোন শেষ নাই। কেউ যদি তিনমাসের কোস করে এমন মানসিকতা নিয়ে বসে থাকে তাহলে সে বড় ভুল করবে। আর একটা বিষয় আপনি আপনার প্রতিষ্ঠান থেকে মাত্র ৫ থেকে ১৫ % শিখতে পারবেন তা প্রতিষ্ঠান বেদে। তিনমাসের কোসের জন্য ৩০ হাজার দিতে হয় আবার কোথাও ৫-১৫ লাখ। কিন্তু অনেক বেশি কিছু ডিপেন্ড করতেছে আপনার উপর। এই কথাগুলো বলার কারন আপনাকে বুঝানো। কখনো অধ্যায়ন, প্রশিক্ষণ আর কাজ বন্ধ করা উচিত নই, মাথা নিছু করে শিখুন তবে সেই শেখাটা হবে হবে, সেরা মানুষগুলোর থেকে, সেরা প্রতিষ্ঠান থেকে, সেরা পরিবেশ থেকে, এইগুলোও আপনাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে হাজার মাইল।

প্রথমে কুক কে হেল্প করুন, হেল্প করতে করতে কানেক্টিং করে ফেলুন সিনিয়রদের সাথে, তাদের সন্মান করুন, প্রথমে কিভাবে অরগানাইজ হতে হয় শিখুন(আমি এইটাকে খুব গুরুত্বপূর্ণ মনে করি), আস্তে আস্তে কিভাবে একইসাথে অনেক কাজ করা যায় বা তারা কিভাবে করে তার দিকে চোখ রাখুন, নাইফ প্রফেশনাল ভাবে ধরুন, সবসময় ধারালো নাইফ ব্যবহার করুন, অবজেক্ট কে গ্রিফ করুন, কাটুন, সব সময় দেখুন আর জানুন আপনার কাঁটা ঠিক হচ্ছে কিনা, ভুল করুন কোন সমস্যা নাই, ভুল থেকে শিখুন, কিন্তু একই ভুল বার বার করা যাবে না, নিজেকে সময় দিন, কল্পনা করুন আপনি যেটা রান্না বা করতে চাচ্ছেন সেটার স্বাদ কেমন হবে বা যেকোনো কাজের ফলাফল কেমন হবে? প্রথম থেকে দায়িত্ব নিতে শিখুন, সময় মতো আসা, সময় মতো কাজ করা, স্টেপ বাই স্টেপ কাজ করা, কাজ গুছিয়ে নেওয়া আগামী কালের কাজ নিয়ে ভাবা, দায়িত্ব নিয়ে রান্না করা, যেমন প্রতিটি ফুডে সল্ট বা স্বাদ ঠিক আছে কিনা তা দেখে সার্ভ করা। মনে প্রানে কোয়ালিটি কে ধারন করুন, যা খারাপ তা কখনো সার্ভ করবেন না, কারন কেউ একজন তার কষ্টের ইনকামের টাকা দিয়ে খেতে এসেছে পরিবার নিয়ে।

রান্নাতে যাওয়ার আগে আপনার মেনুতে যে কয়টি ইনগ্রেডিয়েন্স ব্যাবহার হয়, তাদের সম্পর্কে জানুন। যেমন গাজরের স্বাদ কেমন কতটুকু কুক করতে হবে, রান্নায় কোন মেথড ফলো করতে হবে। তেমনি যে তেল বা মাছ বা লবন যা উইজ করবেন তা সম্পর্কে খুব ভালো ধারণা থাকতে হবে। এইভাবে একদিন আপনি প্রতিটি ইনগ্রেডিয়েন্টস সম্পর্কে জানতে পারবেন, কিভাবে এইগুলোও ব্যবহার করতে হয় তাও জানবেন। এইভাবে জানতে জানতে একদিন আপনি অনেক অভিজ্ঞ হয়ে যাবেন আর এই অভিজ্ঞতা আপনাকে আত্নবিশ্বাসী করে তুলবে।

আমি সবসময় বলি, ভালো শেফ বই পড়তে, ভালো নাইফ সেট নিতে, ভালো রান্নার ভিডিও দেখতে, কল্পনা করতে, সবসময় নতুন নতুন বিষয় নিয়ে আপনার খেলার মাঠে মানে কিচেনে গবেষণা করতে, যত ভুল করবেন তত জানবেন, শিখবেন আর সেই শেখাটা হবে পারপেক্ট। কে আপনাকে দেখে হাসলো নাকি কান্না করলো তাতে কিছু যায় আসে না। আপনি মাটি নিয়ে খেলার মত করে খেলবেন নিজের আনন্দে। অনেক কঠিন পথ পাড়ি দিতে হবে, হতাশ হবেন, ক্লান্ত লাগবে, মোটিভেশনন হারিয়ে ফেলবেন…থামুন। আপনি রান্না ঘরের সৈনিক, জয় করতে এসেছেন, তাই জয় করতে হবেই এজন্য কখনো ছেড়ে যাওয়ার কথা চিন্তা করবেন না যদি আপনার মধ্যে প্যাশন থাকে।

শেখা একদিনে হয়না, তিন মাসে হয়না কিন্তু আপনার শেখার প্রসেস যদি ঠিক থাকে তাহলে আপনি শিখতে পারবেন তাড়াতাড়ি। আমি আমার রান্নার জীবনে যা কিছু পেয়েছি তা এই রান্নাকে প্রাণের মত ভালোবেসে। আপনি ও পাবেন তবে শেফ হওয়ার আগে কুক হওয়ার চেস্টা করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close
Your custom text © Copyright 2024. All rights reserved.
Close